ভু’লে’ও যে’ভা’বে স্ত্রী’র সা’থে স’হ’বা’স ক’রবে’ন না! ডাঃ রিজিয়া জামান

বলা বাহুল্য যে আল্লাহরই ইচ্ছানুযায়ী মানব বংশ বিস্তার ও তার জন্য দাম্পত্য ও পারিবারিক জীবন যাপনের উদ্দেশ্যে স্বামীকে-স্ত্রীকে বিবাহ বন্ধনে আব’দ্ধ হয়ে একটি শান্ত, নিরালা ও সুশৃঙখল পরিবেশের সৃষ্টি করতে হয় এবং এজন্য স্বামী-স্ত্রী দুজনকেই যথাযথভাবে আপনাপন কর্তব্যসমূহ সাধন করতে হয়।কিন্তু কিছু নিয়ম মানা আমা’দের প্রত্যেকের জন্য কর্তব্য।

সহ’বাসের স্বাভাবিক পন্থা হলো এই যে, স্বামী উপরে থাকবে আর স্ত্রী নিচে থাকবে। প্রত্যেক প্রাণীর ক্ষেত্রেও এই স্বাভাবিক পন্থা পরিলক্ষ’তি হয়। সর্বপরি এ দিকেই অত্যন্ত সুক্ষভাবে ই’ঙ্গিত করা হয়েছে আল কুরআনেও।আসুন এখন আমর’া জেনে নেই সেই নিয়মগু’লাঃ

১. সহ’বাসের প্রথমে দোয়া পড়বেন (স্ত্রী সহ’বাসের দোয়া)। তারপর স্ত্রীকে আলি’ঙ্গন করবেন। তখন বিসমিল্লাহ বলে শুরু করবেন।২. সহ’বাস করার সময় নিজের স্ত্রীর রূপ দর্শন শরীর স্পর্শন ও সহ’বাসের সুফলের প্রতি মনো নিবেশ করা ছাড়া অন্য কোনো সুন্দরি স্ত্রী লোকের বা অন্য সুন্দরী বালিকার রুপের কল্পনা করবে না। তার সাথে মিলন সুখের চিন্তা করবেন না। স্ত্রীরও তাই করা উচিৎ।

৩. স্ত্রী যদি ইচ্ছা হয় তখন তাকে ভালোবাসা দিবে এবং আদর সোহাগ দিবে। চুম্বন দিবে। তখন উভয়ের মনের পূর্ণ আশা হবে সহ’বাস।৪. রাত্রি দ্বি-প্রহরের আগে সহ’বাস করবে না।৫. ফলবান গাছের নিচে স্ত্রী সহ’বাস করবে না।৬. রবিবারে সহ’বাস করবেন না।৭. চন্দ্র মাসের প্রথম এবং পনের তারিখ রাতে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না।

৮. স্ত্রীর হায়েজ-নেফাসের সময় বা উভয়ের অসুখের সময় সহ’বাস করবেন না।৯. বুধবারের রাত্রে স্ত্রীর সহ’বাস করবেন না।১০. জোহরের নামাজের পরে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না। ভরা পেটে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না।১১. উল্টাভাবে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না। স্বপ্নদোষের পর গোসল না করে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না।১২. পূর্ব-পশ্চিম’দিকে শুয়ে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না।

১৩. বিদেশ যাওয়ার আগের রাতে স্ত্রী সহ’বাস করবেন না।১৪. স্ত্রীর জরায়ু দিকে চেয়ে সহ’বাস করবেন না। ইহাতে চোখের জ্যোতি নষ্ট হয়ে যায়।১৫. সহ’বাসের সময় স্ত্রীর সহিত বেশি কথা বলবেন না এবং নাপাক শরীরে স্ত্রী সহ’বাস কবেন না। উল’ঙ্গ হয়ে কাপড় ছাড়া অবস্থায় স্ত্রী সহ’বাস করবেন না।