মেয়েদের পেটই বলে দেয় তাদের স্বভাব, চরিত্র ও ভাগ্য, দেখু’ন বিস্তারিত

জ্যোতিষবিদ্যায় সমুদ্রশাস্ত্র এমন একটি বিদ যা থেকে খোঁজ পাওয়া যায় বহু অজানা বি’ষয়ের। মুলত কোন মানুষের দে’হের গঠন দেখে জানতে পারা যায় তার চরিত্রের নানান অজানা দিক। তেমনই ম’হিলাদের পেট দেখে তার প্রকৃতি ও ভবি’ষ্যৎ সম্প’র্কে অনেক কিছু জানা যায়। তাই এই সম্প’র্কে বিস্তারিত জানতে প্রতিবেদনটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

কলসি আকারের পেটঃ- যেসব ম’হিলাদের পেটের আকার কলসির মতন, তাদের জীবন লড়াই বহুল হয়। এরা বহির্মুখী হন এবং কেরিয়ারের দিক থেকে এরা সফল হয়ে থাকেন।ফর্সা ও পা’তলা পেটঃ- যদি কোন ম’হিলার পেট ফর্সা ও পা’তলা ধরনের হয় তাহলে সেই ম’হিলা রাজ সু’খ ভোগ করেন। এরা বিবাহ সুত্রে অনেক ধ’ন সম্পত্তি লাভ করে। গোল নাভিঃ- যে সমস্ত ম’হিলাদের নাভি গোল হয়ে থাকে তারা বার বার প্রেমে পরেন।

এই সমস্ত ম’হিলাদের শা’রীরিক বি’ষয়ের ও’পর নজর রাখা প্রয়োজন। এরা খুব সুন্দরী ও বুদ্ধিমতী হয়ে থাকেন। এরা পারিবারিক জীবনেও খুব সু’খী হয়ে থাকেন। বড় এবং গভীর নাভিঃ- যেসব ম’হিলাদের বড় এবং গভীর নাভি থাকে তারা অনেক ভাগ্যবতী হন। এই সমস্ত ম’হিলারা খুবই বুদ্ধিমান ও উদার মনের হয়ে থাকেন। জীবনের প্রথম ধাপে এরা অসফল হলেও একটা ব’য়সের পর এরা জীবনে প্রচুর সাফল্য লাভ করেন। ফোলা পেটঃ- যাদের পেটের গরন একটু ফোলা হয়, সেই ম’হিলারা বুঝদার হন।

পাশাপাশি এরা খুব পরিশ্রমী মানুষ হন। তবে এদের কাছের মানুষের থেকে যতটা আদর যত্ন পাওয়া উচিৎ তা এরা কখনোই পান না।পেটে লম্বা লুপঃ- যেসব ম’হিলাদের পেটে লম্বা লুপ থাকে তারা বিয়ের পর বিপুল সম্পত্তির অধিকারী হন। এদের মান সন্মানও সমাজে বেশ উচ্চ পর্যায়ে থাকে। সংক্রমণ বাড়ায় বন্ধ হচ্ছে গণপরিবহন ও রেল চলাচল আগামী মঙ্গলবার থেকে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউনের সিদ্ধান্তের পর গণবি’জ্ঞ’প্তি জারি করেছে খুলনা জে’লা প্রশাসক মোহাম্ম’দ হেলাল হোসেন।

এর আগে জে’লা ক’রো’নাভাই’রাস সংক্রমণ প্রতিরোধ ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় খুলনা জে’লা ও মহানগরীতে আগামী ২২ জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত বিধি-নিষেধ আরোপ এবং লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এ সময় জে’লার অভ্যন্তরে অথবা আন্তজে’লা গণপরিবহণ চলাচল বন্ধ থাকবে। খুলনা রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনের আগমন ও বহিরাগমন বন্ধ থাকবে।গণবি’জ্ঞ’প্তিতে বলা হয়, খুলনায় ক’রো’নাভাই’রাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধির কারণে মঙ্গলবার থেকে সকল ধরনের দোকানপাট,

মা’র্কেট, শপিংমল ও কোচিং সেন্টারসমূহ বন্ধ থাকবে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য ও কাঁচাবাজারের দোকান প্রতিদিন সকাল সাতটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত খোলা থাকবে। এ সময়ের মধ্যে হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো পার্সেল আকারে খাবার সরবরাহ করতে পারবে। ওষুধের দোকান সার্বক্ষণিক খোলা রাখা যাবে। সব ধরনের পর্যটন কেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদনকেন্দ্র বন্ধ থাকবে। জে’লার অভ্যন্তরে সকল ধরনের সা’প্তাহিক হাট/গরুর হাট বন্ধ থাকবে।

জে’লার অভ্যন্তরে অথবা আন্তজে’লা গণপরিবহণ চলাচল বন্ধ থাকবে। খুলনা রেলওয়ে স্টেশনে ট্রেনের আগমন ও বহিরাগমন বন্ধ থাকবে। ইজিবাইক, থ্রি-হুইলারসহ যান্ত্রিক যানবাহন বন্ধ থাকবে। অ’তি জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। বাইরে অবস্থানকালে সকলকে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। তবে সরকারি-বেসরকারি অফিসের জরুরি কাজে নিয়োজিত কর্মক’র্তা-কর্মচারীগণ

অফিস চলাকালীন তাদের নিজ নিজ অফিসের পরিচয় পত্র নিয়ে বাইরে চলাচল করতে পারবে। আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা যেমন-কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস, জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহের (স্থলবন্দর, নদীবন্দর ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি),

গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাকসেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অ’ত্যাবশ্যকীয় পণ্য, সেবার সাথে সংশ্লিষ্ট অফিসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এবং উৎপাদনশীল শিল্প ও কল-কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম এ বিধি-নিষেধের আওতামুক্ত থাকবে। বি’জ্ঞ’প্তিতে বিধি-নিষেধ খুলনা জে’লা ও মহানগরের সংশ্লিষ্ট সকলকে কঠোরভাবে মেনে চলার অনুরোধ করা হয়েছে।

অন্যথায় সংশ্লিষ্টদের বি’রু’দ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।এদিকে, আজ রবিবার ৭৯৮টি ক’রো’নার নমুনা পরীক্ষায় রোগী শনাক্ত হয়েছেন ২২৩ জন। নমুনা পরীক্ষা অনুযায়ী শনাক্তের হার ২৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ। শনিবার ৩৮৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় ক’রো’না শনাক্ত হয়েছেন ১৪৯ জন। এদিন আ’ক্রা’ন্তের হার ৩৮ শতাংশ। শুক্রবার খুলনায় সর্বশেষ ক’রো’না শনাক্ত হার দেখা গেছে, ৩৩ দশমিক তিন শতাংশ। এদিন ৬৭৮টি নমুনার মধ্যে ক’রো’না রোগী শনাক্ত হয়েছেন ২২৬ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *