অল্প,তেই মেয়েরা বেশি মো,টা হওয়ার ৬টি কা,রণ ও সমা,ধান জেনে নিন –

শহরের মেয়েরা গ্রা,মের মেয়েদের তুলনায় বেশি মোটা হয়। মুটিয়ে যাওয়ার স,’ঙ্গে শহরের জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাস, পরিবেশ,দূষণ ও জিনগত কারণ দায়ী।

বাড়তি ওজনের কারণে বাড়ছে ডায়াবেটিস, উচ্চ র-ক্তচাপ, হার্টের অসুখ, স্ট্রো,ক ও ক্যান,সারের মতো বড় বড় ব্যা,ধিও। অকালে মৃ-ত্যু-বরণ করছেন অনেকে। শহরের মেয়েরা সকালের ব্রেকফাস্ট নিয়মিত করে না। সকালের ব্রেকফাস্ট না খেলে মোটা হওয়ার ঝুঁ-কি বাড়ে। ফাস্টফুড জাতীয় খাবার বেশি খায়। আর এটি মোটা হওয়ার

এ,টি সবচেয়ে ব,ড় কারণ। তারা কায়িক পরি,শ্রম কম করে। এতে অতিরি-ক্ত ক্যালরি জমে ওজন বাড়ে। শহর এলাকার মেয়েরা টিভি, ল্যাপটপ, ফোনে সময় বেশি দেয়। শহ,রের মেয়েরা গাড়ির ব্যবহার বেশি করে, কম হাঁ,টে। এটি তাদের স্থূল করে তোলে। তারা মাছ কম, মাংস

জাতীয় খাবার ও সফট ড্রি,ঙ্ক জাতীয় পানীয় বেশি খায়। এতে ওজন বেড়ে যায়। শহরের মেয়েরা রাতের খাবার দেরি করে খায়। সাই,কোলজি টুডের গবে,ষণায় দেখা যায়, রাতের খাবার দেরি করে খেলে মোটা হওয়ার ঝুঁ-কি বেড়ে যায়। এ ছাড়া শহরের মেয়েরা রাত জাগে, ঘু’মায় কম। এটিও তাদের মোটা হওয়ার জন্য দায়ী।

চকলেট, চিপস, আই,সক্রিম বেশি খায়। এই অভ্যা,স তাদের মোটা করে দেয়। এছাড়া হরমোনের সমস্যাও মোটা হওয়ার একটি বড় কারণ। শহরের দূ,ষিত পরিবেশ ও জিনগত কারণ অনে,কাংশে মেয়েদের মোটা হওয়ার জন্য দায়ী এমনটাই উঠে এসেছে বিভিন্ন গবেষণায়।

দিন দিন মোটা হচ্ছেন? উপোস করেও রোগা হওয়া যাচ্ছে না? কী করবেন জেনে নিন দিন দিন মোটা হচ্ছেন? যা খাচ্ছেন তাতেই ফুলছেন? উপোস করেও রোগা হওয়া যাচ্ছে না? ওয়া,র্কআউটেও কোনও কাজ হচ্ছে না? বেশি খেলেও বিপদ, কম খেলেও সম,স্যা। প্রতি,দিন সময় মেনে পরিমিত খাবার খেলেই নিয়,ন্ত্রণে রাখা যাব’ে মেদ।

না, কোনও একজন ব্য,ক্তির কথা নয়। আজকাল হা’মেশাই শোনা যায় এমন কথা। মেদ ঝরাতে তাই নানা কসরত। ব্রেক,ফাস্ট বাদ, লাঞ্চ-ডিনারে অল্প একটু খাবার, উপোস, কতকী ! তাছাড়া ওয়ার্ক,আউট তো আছেই। কি,ন্তু তাতেও ঝরছে না মেদ। কার,ণটা কী? লাইফ,স্টাইলেই গলদ। প্রতি,দিনের খুবই তু,চ্ছ কিছু ভুল অ,ভ্যাস ও অনিয়ম প্রতি,নিয়ত মোটা হওয়ার কা,রণ হয়ে উঠছে। সকালে ব্রেক,ফাস্ট বাদ দিলে মেদের
পরিমাণ বাড়ে। খাবার না খেলে মেটা,বলিজমের মাত্রা কমে যায়। মোটা হওয়ার কা,রণ।

খাবার তালিকায় আঁশ,যুক্ত খাবার বাড়াতে হবে। আমিষ ও চর্বি,জাতীয় খাবার কমাতে হবে। মেদ ঝরাতে ভাজাভুজি ও ফা,স্টফুড ব,ন্ধ করতেই হবে বলে দাবি বিশে,ষজ্ঞদের। রে’ড মিট, দোকানের কেনা মিষ্টি, ঘি, ডালডা কম খেতে হবে। মর’,শুমি ফল ও শাকসবজি বেশি করে খেতে হবে। একেবারে বেশি না খেয়ে অ,ল্প অ,ল্প করে বারে বারে খাওয়ার পরামর’্শ বিশে,ষজ্ঞদের। রাতে তাড়াতাড়ি খেয়ে নিতে হবে। খাওয়ার ১ থেকে ২ ঘ,ণ্টা পর শু,তে হবে। খাওয়ার সময় পাক,স্থলী ভর্তি হল কি না, তা জানতে মস্তি,ষ্কের সময় লাগে ২০ মিনিট।

গবেষকদের দাবি, যারা ধী,রে ধী,রে খায়, তারা দ্রুতগ,তিতে খাওয়া ব্য,ক্তির থেকে প্রতিবার ৬৬ ক্যালরি খাবার কম খায়। ১ বছরে ২০ পাউন্ড ওজন কমিয়ে দিতে পারে। দিনে শোওয়ার অভ্যাস ছেড়ে রাতে তাড়াতাড়ি ঘু’মোনোর অভ্যা,স গড়ে তুলতে হবে। প্রতিদিন ৭ ঘণ্টা ঘু’ম মাস্ট। নিয়,মিত প্র,চুর জল খেতেই হবে। লা,ঞ্চের আগে এক,গ্লাস জল

এবং খাওয়ার শেষে অ,ন্তত ১ বা ২ ঘণ্টা পর জল খেতে হবে। প্রতিদিন ভোরে ঘু’ম থেকে উঠতে হবে। সকালে স্কুল, কলেজ, অফিসে যাওয়ার আগে স্না,ন মা,স্ট। প্র,তিদিন সমতল জায়গায় হাঁটতে হবে। নিয়মিত ১ থেকে ২ ঘণ্টা হাঁটার অ,ভ্যাস করতে হবে। বেশি উঁ,চু তলায় ওঠার দরকার না হলে, লিফটের পরিবর্তে সিঁ,ড়ি ব্য,বহার করার

পরাম,র্শ বিশেষ,জ্ঞদের। বেশি বা কম খাওয়া নয়। নিয়মিত ও পরিমিত খেতে হবে। হয় ঠিকই, কি,ন্তু পুরোটা নয়। মেদ ঝরিয়ে সুন্দর ফিগারের একটাই ফর্মুলা, মেডি,ক্যাল পরী,ক্ষা করে চিকি,ত্সক বা ডায়েটি,শিয়ানের পরা,মর’্শে স,ঠিক ডায়েট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *