যৌ’ন শক্তি বারাতে চাইলে সন্ধ্যাবেলা চিবিয়ে খান এই খাবারগুলি

স্বামী-স্ত্রীর একান্ত ব্যাক্তিগত সময় হল রাত। সারাদিন ব্যাস্ততার মাঝে হয়ে ওঠেনা সামান্য কথা টুকু। দিনের শেষে দুই কপো’ত ক’পোতীর মি’লন হয়। দুজন দুজনকে উজার করে

ভা’লবাসতে চায়। র’তিক্রিয়াও ভালবাসারই একটি অ’ঙ্গ। দ’ম্পতিরা

নিজেদের ভালোবাসার মাঝখানে কোন বাধা ব’রদাস্ত করেনা। সে বাইরে থেকে আসা

কোন উটকো ঝামেলাই হোক বা নিজেদের মধ্যে থাকা কোন সমস্যা। রাতে বি’ছানায় যদি দুজন মি’লনের সময় প’রিতৃপ্ত না হয় তাহলে স্বাভাবিক ভাবেই ভা’ঙ্গন ধরে

সং’সারে। অনেক সময় দেখা যায় পুরুষদের কিছু শারীরিক দূ’র্বলতার ফলে বি’ঘ্ন ঘটে যৌ’ন সম্পর্কের। কিন্তু বেশিরভাগ সময়ই বি’ছানায় পুরুষের আ’ধিপত্য চলে। পুরুষেরা

নিজেদের পুরুষ সিং’হ বলে প্রমান করতে চায় তার স’ঙ্গিনীর কাছে। অনেক সময় সেটা হয়ে ওঠেনা কিছু দূ’র্বলতার কারনে। তবে আজ বিশেষ করে পুরুষদের উদ্দেশ্যে বলবো

যে এমন দুটি খাবার আছে যা বিছানায় যাওয়ার আগে স’ন্ধ্যাবেলা চি’বিয়ে জল খেয়ে নেন তাহলে আপনি দেখিয়ে দিতে পারবেন বি’ছানায় আপনার দক্ষতা।

অনেক সময় এমনও হয় যে স’ঙ্গিনীর চরম ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও সে সন্তুষ্ট হয়না তার সঙ্গীর দূ’র্বলতার কারনে। সেখানে নিজের স’ঙ্গিনীর কাছে ছোট হয়ে যেতে হয় সেই

পু’রুষকে। তাহলে আজ থেকে আর এসব সমস্যায় পড়তে হবেনা আপনাদের। এই সামান্য জি’নিসগুলির সাহায্যে হয়ে উঠতে পারে আপনাদের জীবন মধুময়। আমরা

সকলে জানিনা কি কি খাবার খেলে আর এই সমস্যার সম্মুখীন হতে হবেনা। কিন্তু এটুকু নিশ্চই জানি শরীরে প’র্জাপ্ত পরিমানে পুষ্টি গেলে এধরনের সমস্যা আ’সেনা।

সাধারণত শরীরে ভিটামিন ও মিনারেলসের ভা’রসাম্য বজায় থাকলে এন্ড্রোক্রাইন সিস্টেম বজায় থাকে। এন্ড্রোক্রাইন সিস্টেম শরীরে ইস্ট্রোজেন এবং টে’স্টোস্টেরনের

ভা’রসাম্য বজায় রাখে। আর এই দুটি হ’রমোন আমাদের যৌ’ন ইচ্ছা ও আ’কাঙ্খা নিয়ন্ত্রনে রাখে। ভালো দক্ষতা দেখানোর জন্য সুখাদ্য খাওয়া খুব জরুরি। তাহলে এবার

জানুন খাবার গুলি কি কি যা খেলে আপনি বিছানায় হয়ে উঠবেন পুরুষ সিংহ। ১। রসুন- যারা বাবা হতে ইচ্ছুক তাদের জন্য রসুন একটি এমন খাদ্য যা স্পা’র্মের ক্ষমতা বৃদ্ধি

করে। এতে আছে সে’লেনিয়াম নামক এমন একটি অ্যা’ন্টিঅক্সিডেন্ট যা স্পা’র্মের স’ক্রিয়তা বাড়ায়। রসুন যৌ’নাঙ্গের উদ্দীপনা বাড়ায়। ২। কালো জিরা- কালোজিরা বা

নাই’জেলা সিডে রয়েছে ১৫টি অ্যামাইনো এসিড। এছাড়াও কালোজিরায় ২১% প্রোটিন ও ৩৮% শর্করা আছে। নিয়মিত কালোজিরা সেবনে স্পা’র্ম সংখ্যা বৃদ্ধি পায় এবং স্পা’র্ম

পেটের মেদ বাড়ার- পেটের মেদ নিয়ে চিন্তিত নারী-পুরুষ উভয়েই। সারাদিন বসে কাজ করার ফলে এই সমস্যা বেশি দেখা দেয়। অনিয়মিত খাদ্যাভ্যাসও এর জন্য দায়ী। জটিল এই সমস্যা থেকে বাঁচতে কত কিনা করেন সবাই।

তবে আসল সমস্যাটি কোথায় তা অনেকেই বুঝতে পারেন না। অনেকসময় কম খেলেও ভুড়িটা নিজের ইচ্ছেমত বেড়েই চলে। আসুন জেনে নেই এমন ছয়টি অবাক করা কারণ যার ফলে পেটের মেদ বাড়ে-

> সারা দিনে ঘুরতে ফিরতে, কাজের ফাঁকে কিছু-না-কিছু খাওয়া হয়েই যায়। কিন্তু এই খাবারগুলো মুখরোচক স্ন্যাক্স হলেই সমস্যা। ফাস্ট ফুড খেতে ভালো হলেও স্বাস্থ্যের জন্য একেবারেই ঠিক নয়। তার বদলে যদি ফল, আমন্ড বা স্যালাড খাওয়া যায়, তাতে উপকার হবে।

> অনেকেই দই খেতে পছন্দ করেন না। যা পেটের মেদ বাড়ার অন্যতম কারণ। তাই দই খাওয়ার অভ্যাস করুন। কারণ এতে যে ‘গুড ব্যাক্টেরিয়া’ থাকে, তা হজমে সাহায্য করে। ফলে পেটে মেদ বাড়ার সুযোগ হয় না।

> কর্নেল ইউনিভারসিটির বিশেষজ্ঞদের মতে, নেগেটিভ ইমোশান থাকলে বেশি খাওয়ার প্রবণতা হয়। যা শরীরের পক্ষে খুবই ক্ষ’তিকারক। তাই নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

> তৃষ্ণা পেলে অনেকেই সফট ড্রিঙ্কস পান করে। এতে অত্যাধিক ক্যালোরি রয়েছে যা শরীরে মেদ বাড়িয়ে দেয়।

> স্লিম হতে গিয়ে অনেকেই খাওয়া-দাওয়া কমিয়ে দেয়। চিকিৎসকদের মতে, খাবারের পরিমাণ কমালে সমস্যা নেই। কিন্তু, বেশিক্ষণ না খেয়ে থাকলেও পেটে মেদ জমে।

> অফিসে বা অন্য কোনো কাজ করার সময় একভাবে অনেকক্ষণ বসে থাকলেও বেলি ফ্যাট বেড়ে যায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতি এক থেকে দেড় ঘণ্টা অন্তর নিজের সিট থেকে উঠে খানিকক্ষণ হাঁটাচলা করা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *