পিরিয়ডের ব্যথা থেকে ওজন কমানোর ঘরোয়া টোটকা…

মেয়েদের রোজকার জীবনে অনেক সমস্যা আছে, তার মধ্যে পিরিয়ড হল এমন একটা সমস্যা যা মেয়েদেরকে প্রতি মাসে সহ্য করতে হয়। বিভিন্ন সমস্যার কারনে অনেক মহিলাদের ওজন বেড়ে যায়, তারই মধ্যে পিরিয়ডের ব্যথা হলেও অনেকের ওজন বৃদ্ধি পায় যা শরীরের জন্য ক্ষতিকারক। বেশি ওজন হয়ে গেলে শরীরে অন্যান্য সমস্যা দেখা যায়।

অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধির ফলে ডায়াবেটিসের মত ভয়ঙ্কর রোগ শরীরে বাসা বাঁধে। ডায়াবেটিসের সেই অর্থে কোনো ওসুধ এখনও আবিষ্কার হয়নি, পুরোটাই নিয়ন্ত্রনের উপর নির্ভরশীল। তবে এই ওজন কমানোর কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি আছে যা মেনে চললে অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি হবে না।

মেথিবীজ – যে সব মেয়েদের PCOS থাকে তাদের অগ্ন্যাশয় থেকে বের হওয়া ইনসুলিন দেহের কোষে ব্যবহৃত হতে পারে না, ফলে ওজন বাড়তে থাকে। মেথি ইনসুলিনের মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। তিন কাপ মেথি বীজ দেড় কাপ জলে ভিজিয়ে রাখুন রাত্রিবেলায়। সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে খেয়ে নিন, এতে শরীরে মেদ জমবে না।

দারচিনি – বিশেষজ্ঞদের মতে দারচিনি টাইপ ২ ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সাহায্য করে। এটি টকদই এর সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন অথবা চায়ের সাথে মিশিয়ে সকালে খেতে পারেন, এতে ওজন কমবে। ডায়াবেটিসও প্রতিরোধ হবে।

তুলসীপাতা – স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে যেসব মহিলাদের PCOS আছে তাদের মুখে চুল গজাতে পারে, এমনকি ব্রন হতে পারে। এর থেকে মুক্তি পেতে সকালে তুলসীপাতা চিবিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যাবে।

মধু – খালি পেটে এক চামচ মধুর সাথে লেবু মিশিয়ে খান, এতে ওজন কমবে। গরম জলে লেবু চিপে তাতে মধু মিশিয়ে খেতে পারেন, এতেও ভালো ফল পাওয়া যায়। এতে শরীরের মেদ কমে। পিরিয়ডের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে মধু খুব উপকারী।

আমলকি – সকালে খালি পেটে গরম জলের সাথে আমলকির রস মিশিয়ে খেলে ওজন কমে। এছাড়া দেহের দূষণ কমায়। এই সাধারণ খাবার গুলি নিয়মিত খেতে পারলে আপনার শরীরের সমস্ত সমস্যার সমাধান হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *