মা’সিকের কত দিন আগে বা পরে স’হবা’স করলে বা’চ্চা হয় না!

পিরি’ওডের র’ক্তক্ষ’রণ শুরু হওয়ার দিন থেকে প্রথম সাত দিন ও শেষ সাত দিন স’হবা’স করলে গ’র্ভধারণের সম্ভাবনা কম থাকে। তাই ওই সময়কে স’হবা’সের নি’রাপদ সময় হিসেবে ধরা হয়।

তবে এই শর্ত কেবল সেই সকল না’রীদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য যাদের পি’রিওড নি’য়মিত ২৮ দিন (বা নি’য়মিত ২৬ থেকে ৩১ দিন) অন্তর অন্তর হয়।

এদের ক্ষেত্রে র’ক্তস্রা’ব শুরু হওয়ার দিনকে প্রথম দিন ধরে গুণতে থাকলে মোটামুটি ১২ থেকে ১৯ তম দিনে ডি’ম্বাণু নি’র্গমণ হয়।

পি’রিও’ডের বাকি দিনগুলো, প্রথম থেকে সপ্তম ও ২১ তম দিন থেকে পুনরায় র’জস্রা’ব শুরু হওয়ার দিন পর্যন্ত মি’লনের নিরাপদ সময় হিসেবে গন্য করা হয়।

মনে রাখবেন যে র’ক্তক্ষ’রণ শুরু হবার দি’নকে প্রথম দিন ধরেই কিন্তু উপরোক্ত হিসেব দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখযোগ্য যে পি’রিও’ডের কোন দিনই প্রকৃত নি’রাপদ দিন নয়। উপরিউল্লিখিত নি’রাপদ সময়ে মি’লন করলেও গ’র্ভধারণের স্ব’ল্প হলেও কিছুটা সম্ভাবনা থেকেই যায়। কাজেই অপর কোন জ’ন্ম নি’য়ন্ত্রণের উপায়

দাঁত একদম সাদা ঝকঝকে করতে আজই ব্যাবহার করুন এই জিনিস, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন

মুখ মানুষের সম্পর্কে অনেক কিছু বলে থাকে। আর মুখের মধ্যে সব থেকে মূল্যবান হল হাসি, এই হাসি তখনই ভালো লাগে যখন দাঁত সুন্দর ও চকচকে হয়। কারো সাথে প্রথম দেখা হলে তার সম্পর্কে একটা ধারণা তৈরি হয় এই হাসির জন্যই।

তাই অন্যের মনে নিজের সম্পর্কে একটা ভালো ছাপ ফেলার জন্য সবার আগে যা জরুরি তা হলো দাঁতকে চকচকে রাখা। কিন্তু অনেকেই দাঁতের হলুদ রঙের জন্য ভুগে থাকে, ভালো করে করো সাথে কথা বলতে পারে না। কিন্তু মাত্র ২ মিনিটেই দাঁতের হলুদ রঙ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এবং একই সাথে চকচকে দাঁতের অধিকারী হওয়াও সম্ভব। আসুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে সেটি সম্ভব।

এই জন্য দরকার টুথপেস্ট, বেকিং সোডা , লবণ, লেবুর রস ও কফি । প্রথমে একটি ছোট্ট পাত্রে পরিমাণ মতো টুথপেস্ট নিন তারপর এর সাথে অর্ধেক চামচ বেকিং সোডা নিন, এর ওপর অল্প লবণ দিন এবং তারপর এর সাথে অর্ধেক চামচ পাতি লেবুর রস দিয়ে ভালো ভাবে মিশ্রণ তৈরি করুন।বেকিং সোডা না থাকলে আপনি এর বদলে ইনো ও ব্যবহার করতে পারেন।তবে মনে রাখতে হবে ইনো ব্যবহারের ক্ষেত্রে খুব অল্প পরিমাণে ইনো ব্যবহার করতে হবে। এবং সব শেষে এর সাথে কফি যোগ করে ভালো ভাবে মিশ্রণটি তৈরি করে ফেলুন।

এরপর মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে সেটিকে ব্রাশে করে নিয়ে দাঁত মাজুন। এটি শুধুমাত্র একবার করার ফলেই আপনার দাঁত হিরের মতো সাদা ও উজ্জ্বল দেখাবে। তবে এটি করার সময়ে একটা জিনিস অবশ্যই মাথায় রাখবেন, যেনো 2 মিনিটের বেশী ওই মিশ্রণ টি ব্যবহার করা না হয়। কারণ এই মিশ্রণে আগে থেকেই বেকিং সোডা বা ইনো ব্যবহার করা হয়েছিলো যার ফলে একবার ব্যবহার করলেই দাঁত চকচকে হয়ে যাবে। বরং বেশি ব্যবহারে দাঁতের ক্ষতিই হতে পারে। তাই চেষ্টা করুন 2 মিনিটের কম সময়ে এই মিশ্রণটি ব্যবহার করার।

এই মিশ্রণটি ব্যবহার করলে আপনার সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে এবং আপনি রাতারাতি চকচকে দাঁতের অধিকারী হয়ে উঠবেন। ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে জানিয়ে দিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *