আজই জেনে নিন ভিটামিন ই ক্যাপসুলের অজানা এই ৮টি ব্যবহার

শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি পূরণে সহায়ক ভিটামিন ই ক্যাপসুল। এর পাশাপাশি এই ক্যাপসুলের রয়েছে অজানা আরো অনেক ব্যবহার। যার মাধ্যমে আপনি পেতে পারেন সুন্দর ত্বক ও চুল।

চলুন জেনে নেয়া যাক তেমনই কিছু ব্যবহার-

— চুল বাড়াতে সাহায্য করে ভিটামিন ই। অলিভ অয়েলে ভিটামিন ই মিশিয়ে তা মাথায় আধ ঘণ্টা মাসাজ করুন। নারকেল তেলের সঙ্গেও মিশিয়ে মাথায় মাখতে পারেন।

— ক্যাপসুলের ভিতরের তেল মুখে দাগ থাকলে সেখানে লাগান। তার পরে গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত করুন।

— রোজ রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে ক্যাপসুলের ভিতরের তেল লাগান। বলিরেখা কমবে।

— ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও কাজ করে ভিটামিন ই ক্যাপসুল। মধু আর লেবুর রসের সঙ্গে ভিটামিন ই মিশিয়ে হাত-পা শুকনো হয়ে গেলে লাগান।

— স্ট্রেচ মার্কস থাকলেও লেবুর রসের সঙ্গে ভিটামিন ই লাগান নিয়মিত।

— ঠোঁট ফাটলেও ঘুমাতে যাওয়ার আগে ভিটামিন ই লাগান। মধুর সঙ্গেও ভিটামিন ই লাগাতে পারেন।

— গরম পানির মধ্যে ভিটামিন ই লাগান। তার পরে সেই জলে নখ ডুবিয়ে রাখুন।

— চুলের ডগা ফাটলে, নিয়মিত নারকেল তেল বা অলিভ অয়েলের সঙ্গে ভিটামিন ই মিশিয়ে লাগিয়ে নিন।

পেঁয়াজের রস কি চুল পড়া কমায়? জেনে নিন, আসল সত্যিটা

চুল পড়া নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করেও কূল পাচ্ছেন না! শীতের শেষে পাতাঝরা গাছের মতো প্রতিদিনই পড়ছে চুল। কপালে চিন্তার ভাঁজ। রাতে হচ্ছে না ঘুম। চুল পড়া নিয়ে দুশ্চিন্তা করতে গিয়ে চুল পড়ছে আরও বেশি!

পেঁয়াজের রস কি চুল পড়া কমায়? জেনে নিন, আসল সত্যিটা : – চুল পড়া কমাতে চেষ্টার কমতি নেই। অ্যালোপ্যাথি থেকে হোমিওপ্যাথি, ইউনানি এমনকি আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞদের কাছেও ধরনা দিয়েছেন। তাতেও কাজ না হওয়ায় বাসায় নিজ উদ্যোগে টক দই, আদার রস, মেথির রস ছাড়াও নানা উপকরণের মিশ্রণে ‘প্যাক’ বানিয়ে চুলে মাখছেন।

কিন্তু ব্যর্থ হচ্ছে সব চেষ্টাই। চুল পড়ছেই আর আপনিও ভাবছেন, এ থেকে রক্ষার বুঝি কোনো উপায় নেই! উপায় আছে রূপচর্চাবিষয়ক ব্লগার অ্যাম্বার জ্যানিয়েল্লের কাছে। পেঁয়াজ ও রসুন চুল পড়া প্রতিরোধ করে, এ কথা জানার পর ব্যাপারটা পরীক্ষা করে দেখতে চেয়েছিলেন জ্যানিয়েল্লে।

ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করা এক ভিডিওতে তাঁর ভাষ্য, ‘বলা হয়, চুলের বৃদ্ধিতে পেঁয়াজ ও রসুন দারুণ কাজ করে। কারণ এর মধ্যে প্রচুর সালফার রয়েছে, যা চুল পড়া রোধ করে। বিশেষ করে পেঁয়াজ চুলের ভেঙে যাওয়া রোধ করে প্রাকৃতিকভাবে চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে—এ কথা শোনার পর সিদ্ধান্ত নিই নিজেই তা পরীক্ষা করে দেখব।’

জ্যানিয়েল্লে এই পরীক্ষায় জল, গোলমরিচ ও পেঁয়াজের রস একসঙ্গে মিশিয়ে ‘হেয়ার মাস্ক’ তৈরি করেন। পরীক্ষা শেষে তাঁর দাবি, পেঁয়াজের রস সত্যি সত্যিই চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে! ইনস্টাগ্রামে শেয়ার করা ভিডিওতে সেই ‘হেয়ার মাস্ক’ তৈরির রেসিপি আর প্রস্তুত প্রণালিও বর্ণনা করেছেন জানিয়েল্লে। রেসিপিগুলো হলো, টুকরো করে কাটা বড়সড় একটা পেঁয়াজ, দুই কাপ জল এবং এক টেবিল চামচ গোলমরিচ।

প্রস্তুত প্রণালি—প্রথমে একটি পাত্রে দুই কাপ জল ও পেঁয়াজের টুকরো ১০ মিনিট সেদ্ধ করুন। এতে পরিস্রাবণ পদ্ধতিতে পেঁয়াজের ভেতরকার রস জলের সঙ্গে মিশে যাবে। সেদ্ধ হয়ে এলে পেঁয়াজের টুকরোগুলো ফেলে দিন। পাত্রের জল ঠান্ডা হয়ে এলে গোলমরিচ ছেড়ে দিন।

এরপর পেঁয়াজের রসমিশ্রিত জলটুকু বোতলে ঢেলে তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবহার করতে পারেন। নোংরা চুলে এই জল ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। চুলে মাখানোর পর কিছু একটা দিয়ে চুল ঢেকে রাখুন প্রায় ২ ঘণ্টা। তারপর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। জ্যানিয়েল্লের সেই ভিডিওতে অনেকেই চুল পড়া কমাতে পেঁয়াজের রসের ভূমিকার ইতিবাচক প্রশংসা করেছেন।

চুল পড়া রোধে রসুনের ভূমিকাও কিন্তু কম নয়। নিউইয়র্কের খ্যাতনামা রূপচর্চাকেন্দ্র ‘পিয়েরে মিচেল সেলুন’-এর মাস্টার স্টাইলিশ জেরোমে লর্দেত বলেন, ‘রসুন রক্ত চলাচলে উদ্দীপনা জোগায়। তাই এটা খুবই সম্ভব যে, চুল পড়া রোধে রসুন বেশ কার্যকর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *