জাদুর মতোই স্থা’য়ীভাবে আঁচিল দূর করবে পান! জা’নুন পদ্ধতি

পান খাওয়ার অভ্যাস অনেকেরই রয়েছে। পান খাওয়া স্বা’স্থ্যের পক্ষেও উপকারী, তবে অতিরি’ক্ত পান খাওয়া ক্ষ’তিকর। জানলে অ’বাক হবেন, পান শুধু শা’রীরিক নানান রো’গই সারায় না, ত্বকের অনেক স’মস্যার সমাধানও দেয়।

ত্বকে অনেকেরই আঁচিল হয়ে থাকে। যা দে’খতে বেশ বিচ্ছিরি দেখায়। এর কারণে সৌন্দর্য প্র’কাশেও ব্যাঘাত ঘ’টে। অনেকেই নানা প্রসাধনী ব্যবহার করে থাকেন এর থেকে র’ক্ষা পেতে। তবে পান পাতাতেই যে এর থেকে চিরতরে মু’ক্তি পাওয়া সম্ভব তা অনেকেই জা’নেন না। চলুন তবে আঁচিল থেকে স্থা’য়ীভাবে মু’ক্তি পেতে পান কীভাবে ব্যবহার করবেন সেই পদ্ধতিটি জে’নে নেয়া যাক-

শ’রীরে যে কোনো স্থানে আঁচিল হলে তা পরি’ষ্কার করে ধুয়ে নিন। এবার একটি পান সামান্য পানি দিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন। এবার এর রস ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে আ’লাদা করে নিন। এবার পানের এই রস আঁচিলের উপর কয়েক দিন লা’গান। এতে ধীরে ধীরে খসে পড়বে আঁচিল এবং ওই জায়গায় আর কখনোই আঁচিল হবে না।

বিদ্যুৎ বিল কমিয়ে নেয়ার সহজ কিছু টোটকা

অনেক সময় বিদ্যুৎ বিল দেখে চমকে যেতে হয় আমাদের। প্রশ্ন থাকে আমি তো ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী অনেক কম ব্যবহার করি, তবুও এত বিল আসে কেনো! কিন্তু অনেক সময় আমাদের কিছু গাফিলতির কারণেও বাড়তে থাকে বিল, যা আমরা জানি না।

চলুন জেনে নেয়া যাক বিদ্যুৎ বিল কমানোর কয়েকটি উপায়- দরকার না হলে প্লাগ খুলে/সুইচ বন্ধ করে রাখবেনঃ আমরা অনেকেই জানি না ব্যাপারটা, কিন্তু দেয়ালের পয়েন্টে আপনি যদি শুধু শুধু একটা চার্জার লাগিয়ে রাখেন তাহলেও কিছু পরিমাণে বিদ্যুৎ খরচ হয়। দরকার না হলে ওভেন, ফ্যান, পিসি এসব বন্ধ করে রাখুন। আপনার যদি এগুলো ভুলে যাওয়ার অভ্যাস থাকে তাহলে একটা বড় মাল্টিপ্লাগে সবগুলো প্লাগ লাগিয়ে নিন। রাত্রে ঘুমাতে যাবার আগে পুরো মাল্টিপ্লাগ বন্ধ করে দিয়ে ঘুমাতে যান।

লাইট বাল্ব পরিবর্তন করুন: আপনার বাড়িতে এখনো পুরনো ধাঁচের লাইট বাল্ব থাকলে তা বদলে এনার্জি-সেভার বাল্ব ব্যবহার শুরু করুন। এগুলো ৭৫% পর্যন্ত বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে পারে আর এদের আয়ুও হয় ছয়গুণ বেশি। শুধু বাল্ব নয় বরং আরও কিছু ইলেক্ট্রনিকস ব্যবহার করা যেতে পারে যেগুলো কম বিদ্যুতেই চলে। এগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

বুদ্ধি করে ব্যবহার করুন ওয়াশিং মেশিন: ওয়াশিং মেশিন ব্যবহারে প্রচুর পরিমাণে বিদ্যুৎ খরচ হয়ে থাকে। খরচ কমাতে চাইলে কখনোই গরম পানির সেটিং ব্যবহার করবেন না। পানি গরম করতে বেশি বিদ্যুৎ খরচ হয়। আর ড্রায়ারে কাপড় শুকানোর বদলে বারান্দা বা ছাদে দড়ি টাঙ্গিয়ে তাতে নেড়ে দেবার ব্যবস্থা করুন। নেহায়েত বর্ষাকাল না হলে ড্রায়ার ব্যবহারের তেমন কোনো যুক্তি নেই।

খারাপ সংযোগ সারিয়ে তুলুন: বাড়িতে অনেক সময়ে বিদ্যুৎ সংযোগ খারাপ বা ত্রুটিপূর্ণ হবার কারণে আপনার বিদ্যুৎ খরচ বেশি হতে পারে। এক্ষেত্রে পেশাদার কোনো ইঞ্জিনিয়ার ডাকিয়ে বাড়ির সংযোগ চেক করিয়ে নিন।

পরিষ্কার রাখুন আপনার ইলেক্ট্রনিকস: রেফ্রিজারেটরের কয়েল পরিষ্কার রাখলে তা চলতে বেশি বিদ্যুৎ খরচ করে না। বছরে দুবার করে একে পরিষ্কার করিয়ে নিলে আপনার বিল কম আসবে। একইভাবে আপনার এসির ফিল্টারও পরিষ্কার রাখুন। এটা ময়লা থাকলে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বেশি বিদ্যুৎ খরচ হতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *